poet bidyut bhowmick india

রবিঠাকুর এবং সব দিনের রোদ্দুর

কিছু একটা স্বপ্ন দেখার পর ছদ্মবেশ নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন
আমার এতোকালের রবীন্দ্রনাথ ! ঈশ্বর যে ভাবে স্থির চোখে
তাকিয়ে থাকেন, তিনি অতি প্রাচীন ইঙ্গিতে আমাকে বোঝান
ছন্দমিলের অঙ্ক !

এসব স্বপ্ন প্রায় প্রতিদিনই দেখতে হয় ;
শ্রাবণের ধারার মতো কিম্বা আনন্দ ধারা বহিছে ভুবনে “— এসব
আমাকে অহর্নিশ হৃদ পোশাকের অতলান্তে নাড়ায়-চাড়ায় ,
দিনাবসানে জ্যোৎস্না ছড়ায় অন্তর্গত লয়~প্রলয়ে

এই ভাবেই চলছে সময়
চলেছে অদৃশ্যে মনে-মনে কথা
অথচ রবিঠাকুর ; কবিতার নির্জনতা শুধুই কি তুমি নেবে
একক ইচ্ছাকৃত !!

নিশিকন্যা এবং প্রেম-সুন্দরী

শেষ স্তবকের কাছে কী-যে চাবার আছে
মহিষ-মহিষ মেঘের মধ্যে কাঙালের চেহারা নিয়ে দাঁড়িয়ে
চোখচুপ আমি , —

এরপরেতে মনের কোণে ফাগুন ধুলো সমুদ্রনীল
এসব নিয়ে সাত-সতেরো স্মরণযোগ্য চিন্তা পাখি গান জুড়েছ ,
এভাবেই প্রতিদিন সহজ সত্যে আখোলা হই

এভাবেই একা একা অতলে ডুবি ; বেশ ভালো লাগে !
নিশিকন্যার কাছে দু’হাত পেতে দিতেই
প্রেম যেন জীবন ভিক্ষা চেয়ে নেয় অচিরেই

কোথাকার মহান প্রলয়ে যৌবন এসে হঠাৎ-ই বলে ;
এসো , শরীর দেব !

সব বয়সের ভারে মন খারাপের অতীত থেকে একটা কবিতা
আমার সাথে গোপনে গোপনে কথা বলে ! তাপে নির্ভয়ে

poet bidyut bhowmick india

কবিতাকথা ও দর্পণ

এক ছত্র কবিতায় তুরুপের তাস উল্টে গৃহকোণের পিঁপড়েরা
নির্লিপ্ত কামড়ে অঙ্ক পথে হাঁটার ইচ্ছা ত্যাগ করলে ;
আমিও সেই ধারাভাষ্যের বিপরীতে চলে এলাম !

কঠিন এক উচ্চারণ ; সে যেন আমারই তপোবন ঘেঁটে চলে , —
কদিনের ব্রক্ষ্মনাদে নির্ঘুম রাত হঠাৎ আত্মবীজ লুকায়
বহুবিধ বালিশের নিচে ।

আজ সারাদিন চুপ হয়ে আছি
রূপ নাচনের ছন্দ পোড়া গন্ধ আসে বৃষ্টি~বৃষ্টি মেঘলা দিনে
সেই কারণেই এই চোখেতে আমার আমি প্রতিবিম্বহীন ,
এটা কার্যত-ই নীরবতায় আকাশ এঁকেছে আয়নার ঝুপ নদীতে !

কবিতাকথা শিশির জলে গলতে – গলতে আচম্বিতে
জানিয়ে গেল ; আজ সারারাত শুধু কবিতার সাথে
একান্তে সহবাস হবে !!

ধ্রুপদী কবিতাপট

নতুন দরজায় তালা না দিলে খুব একটা স্তব্ধতার কথা কে-বলবে, –
ঘুম-ঘুম অযান্ত্রিক মন লুকিয়ে পড়েছে কোন এক কারণে ; সেটা
এই হাত থেকে খসে পড়ে হৃদয়তান্ত্রিক মহা-সমুদ্রে

অতলান্তে রোদের মধ্যে দাঁড়িয়ে আছে একটা কলঙ্কিত কঙ্কাল
স্তব্ধ অথচ ভেতর শুদ্ধু নগ্ন-নগ্ন ব্যঞ্জনা , — কুপ্রভাবে রুষ্ট হতেই
ভেতর থেকে হাজারটা চোখ মন কামড়ে বলে উঠেছিল ;

কবিতারা কিছুদিন ধরে ভা-লো নেই !
হঠাৎ কিভাবে আকাশটা মথার মধ্যে ভেঙে পড়ল
কী যেন এক শব্দ শুনে সেই দরজায় তালা ভাঙলাম ! এমনি

poet bidyut bhowmick india

রোদ্দুর মন এবং অন্য শরীর

তুই একদিন মধুমাসে শ্রাবণ স্তব্ধতায় এলে আমি একা হয়ে যাই
সেই রোদ্দুর পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করে আদিগন্ত দহন জ্বরে , —
শেষ স্তবকের জগৎ যেন ভিন্ন সুরে কথা বলে !

আজকে আমি আঁকছি বসে আমি আমার একার শরীর ,
তবুও কেন মিথ্যা মিথ্যা সব মনে হয় !
এসব কথা ভেতর জুড়ে আদ্যোপান্ত ভিজিয়ে তোলে নগ্নস্নানে ,
কি ভাবে এই সময়-রেখার মধ্যে চলা মৃত্যু ঠেলে ;

সেই কারণেই এই আমাকে দর্পণে তাই লুকিয়ে রাখি
নির্জনতা অন্য শরীর , হয়তো কিছু ভ্রান্ত বাতাস
তবুও যেন আড়াল থেকে লুকিয়ে হাসে ভা-লো-বা-সা !!

মায়া ঘড়ি

সন্ধ্যা ছটায়
এখানে চোখ উদ্বাস্তু ; থৈ-থৈ অঢেল জ্যোৎস্না
খেয়ালী দৃশ্যের সীমাহীন প্রদর্শনী
লাইফলাইন বাঁচিয়ে ওই ছায়াপথ , তারপর খাদ্য-পানিয়
কথা হয় কবিতায়

স্বপ্নে দেখা নির্মিত নির্ভরতার সীমারেখা
অথবা কেমন আছো ; ব’লে প্রশ্ন করে কয়েক সেকেন্ড একমনে
মায়াঘড়ির শব্দ শোনা — হায় এ যে যতিচিহ্ন নিবিড় কালিমা
কিম্বা অদেখা সংখ্যাগুলোর ভাসান
নয়তো একাকী নির্জন ! !

ধ্রুপদী কথোপকথন

সমতল থেকে শূন্যতা ; আমার বাসস্থান
আপাতত লজ্জাবোধের সঙ্গী একমাত্র বহু প্রাচীন কাঁধব্যাগটা !
আর্যপুরুষের মতো নতজানু হয়ে অসাধারণ থাকতেই
চেয়েছি রোজ * হয়তো বৃষ্টির অতলান্ত দোষে ডুবে
দৃষ্টি মেলে দিয়েছি হে প্রেম তো-মা-র জ্যোৎস্নামোথিত বুকে ।

প্রতিদিন কলঘরের আয়নায় আমি আমার অশেষ নগ্নতা দেখি—
প্রতিদিন একই ভাবে রোদ্দুরে পুড়ি , আমার প্রতিটা নিঃশ্বাস যেন
প্রেম নিংড়ে বেরিয়ে পরে ঘর থেকে রাস্তায় ! অন্য এক অন্ধকার
নির্বিশেষে জানতে চেয়েছে আমার বাঁধনহারা মনের ঠিকানা , —
অথচ ওই নির্লিপ্ত সিগারেট পুড়িয়ে চলছে আমার হৃদয় ।

কই তোমার চোখের জলে ছাইচাপা যন্ত্রণাগুলি ভেজাও দেখি , —
এতোদিন উপোসী ছিল এই আত্মা , স্মৃতিগুলো শুয়েছিল আমার
চিন্তা আর কল্পনাকে আজন্মকাল মনের দরজাটা বন্ধই ছিল ;
সেখানে ছিল নির্জলা বালি আর বালি * অথচ আজ ঘুমের
ভেতর থেকে স্বপ্নে দিলে দেখা ! এরপর সেই বন্ধ দরজা তোমার

স্পর্শ পেয়ে খুলে গেল , জানিনা কী কারণ
সমস্ত দিনটা আজ জানলার পর্দার মতো নীল ,
তারই মধ্যে মিশিয়ে দিয়েছি গোপনে ভালোবাসার অগুন্তি রঙ —
তবু যেন রোদ্দুরে পুড়তে ভালোলাগে , তোমার আগুনে প্রিয়তমা ।
সারাটা রাত সাদা পৃষ্ঠায় তোমাকে আঁকি প্রেম আর উত্তাপের
রঙিন আগুনে !!

রাস্তা এবং ধ্বনি গন্ধ

রাস্তা শেষ হ’লে কান্নার দাগ চুপচাপ শুষ্ক~শান্ত
অদ্ভুত ছুটি-এ ঘোড়া
রৌদ্র গন্ধ অদম্য ক্ষুধার্ত সাহস ডাকে । রাস্তায় ধরা পড়ে পায়ের
শব্দের ভিতর শীতল স্রোত , —

তবুও অন্যের সাথে পথ চলে সহজ ছায়ারা
গর্ভাবস্থায় থেকে পৃথিবীর রাজপথগুলো স্তব্ধ অত্যাচারে প্রবল
নিঃশ্বাস বিপরীতে ধ্রুম্রনীল ছড়ায়
রাস্তা শেষ হ’লে সংকোচ থাকে না পূজারীর হাতের চেটো , —

অন্তর্গত রক্তের মৃদঙ্গ বাজিয়ে কৃপাপ্রার্থী ব’লে ওঠেন নিজস্ব স্বপ্ন
যাকে ছুঁয়ে চুমু খেলে ধন্য বলে মানি আমিও
অতল নাভিশ্বাসে দুরন্ত মিছিল ধ্বনি গন্ধে পালা শেষ করে

poet bidyut bhowmick india

Facebook Comments