Liyakat jowardar Rhymes

গোপালীরা কপালী

গোপালীরা কপালী তাই
মোদের কপাল ফেরাতে
ইচ্ছে করি বসত গড়ি
গোপালবাবুর ডেরাতে ।

কিন্তু সেথায় পুরান পাগল
পায় না যে ভাত মোটে
নতুন পাগল গেলে যদি
বিড়ম্বনা জোটে!

তারচে’ বরং নিজের গাঁয়েই
করবো আলু চাষ
সুখে-দুখে সবাই মিলে
থাকবো বারোমাস।

জীবন যাদের নয়কো সুখের
নানা রকম ঘোঁটে
করবো যে কাজ তাদের মুখে
হাসি যেন ফোটে।

ভেজাল

ভেজাল নিয়ে লাগলো ক্যাঁচাল
গ্রামগঞ্জ আর শহরে
ভেজালস্রোতে যাচ্ছি ভেসে
কে জানে কোন্ নহরে।

খাদ্যে ভেজাল বাদ্যে ভেজাল
ভেজাল বলো নাই কীসে?
ভেজালপ্রেমে ছ্যাকা খেয়ে
আত্মহনন তাই বিষে।

ভেজাল দিয়ে গড়া দালান
ধসে পড়ে জীবনপাত
চলতে থাকে এমন যদি
বলবে লোকে ভেজালজাত।

বিরহিনী পাখি

একটি পাখি গাছের ডালে
ডাকছে কাতর স্বরে
তাই শুনে আজ মনটা আমার
কেমন যেন করে।

ও পাখি তোর প্রাণের সাথী
চলে গেছে দূরে
তার বিরহে উতাল হয়ে
ডাকিস অমন সুরে?

আমিও যে তোরই মতো
একলা ঘরে থাকি
আসবি কি তুই আমার কাছে
বিরহিনী পাখি?

আমার কথা বুঝলো কিনা
হলো না তা জানা
আকাশ পানে উড়াল দিলো
ঝাপটে দুটি ডানা।

পাখিরে তুই থাকিস ভালো
রইলো শুভাশিস
খুঁজে পেলে প্রিয়ারে তোর
আমায় খবর দিস…

ধর্ষণ

দেশ আগালো উন্নয়নের
হচ্ছে বলে কর্ষণ
মন বিষালো বাড়ছে বলে
ব্যাপকহারে ধর্ষণ।

খুনখারাবিও সমান তালে
যাচ্ছে বেড়ে কালে কালে
সুখের গায়ে দুখের গাড়ি
দিচ্ছে নিতুই ঘর্ষণ।

ধরছে পুলিশ হচ্ছে বিচার
নিত্য লেখা চলছে ফিচার
আমজনতাও প্রতিবাদের
করছে বাণী বর্ষণ।

কিন্তু তবু থামছে নাকো
অশালীন এই কর্ম
নৈতিকতার নেইকো বালাই
ভুলছে ওরা ধর্ম।

প্রাণকাড়া এক জাদু

ফুটফুটে তিন বেড়ালছানার
নিত্যনতুন ঝগড়া
দুচোখে না দেখলে ভাবা
যাবে না কি মগড়া!

ঘরের মেঝে খাটের ‘পরে
কিংবা বাতায়নে
দেয় বাঁধিয়ে মারামারি
পরস্পরের সনে।

টম অ্যান্ড জেরির কথা তখন
যায় যে মনে পড়ে
দৃশ্য দেখে নন্দ আমার
ফুল হয়ে যে ঝরে।

ওদের আদর করতে গেলেই
নিজকে লাগে দাদু
ওদের মাঝে পাই যে খুঁজে
প্রাণকাড়া এক জাদু!

Liyakat jowardar Rhymes

Facebook Comments