bangla poem book tobuo dekhte hobe sopno

বইটির লেখার কাজ চলছে, আমাদের সাথেই থাকুন চোখ রাখুন kobitayjagoron.com

সূচি

১.তবুও দেখতে হবে স্বপ্ন
২.তুমি আছ বলে
৩.পুরো একটা আকাশ
৪.মন
৫.ভালো কি থাকা যায়!
৬.ওরে বাপরে বাপ!
৭.কিন্তু তুমি কাঁদবে না
৯.তোমাকেই চাওয়া
১০.বিষ্ময়ে ভাবছি
১১.দুটি ফুল
১২.অন্তর থেকে বাহিরে
১৩.আজ সকালে
১৪.চাই
১৫.তুমি
১৬.ভালবাসি
১৭.তুমি যা বলো
১৮.হয়ত আর…
১৯.তোমার মত তুমি থাকলে
২০.কার জন্যে
২১.আমি না থাকলে
২২.যােগ-বিয়ােগ, গুন-ভাগ = বিফল
২৩.বুবু
২৪.তাতে কি হয়েছে!?
২৫.হায়রে স্বাধীনতা
২৬.সেই কবে
২৭.চোখের জলে
২৮.প্রতিদান
২৯.মা
৩০.সরিষা বা রাইয়ের মতােও না
৩১.টোকাই
৩২.শুধু আমি ভালাে নেই
৩৩.স্বাধীন আমি
৩৪.হলেও তাে হতে পারত
৩৫.কে আর আমার আছে
৩৬.একাকী রাত
৩৭.বৈঠা ধর
৩৮.কবি ও কবিতা
৩৯.অবান্তর
৪০.সাগরের হাত ধরে
৪১.দেবার কিছু নাই
৪২.ফেরার দেশ
৪৩.ইচ্ছেগুলাে

তবুও দেখতে হবে স্বপ্ন

আঘাতের তীব্রতায় কোমলতাগুলো
কঠিনে রুপান্তরিত হচ্ছে আজ-কাল যখন তখন
থেমে যাচ্ছে বসন্তের গান
কষ্টগুলো শরীর ছেদ করে ক্ষত-বিক্ষত করছে স্বপ্নীল মন
তবুও দেখতে হবে স্বপ্ন।
মিশে যেতে হবে বর্তমানের প্রথম প্রহরে ।

যত্র-তত্র ক্ষুন্ন হচ্ছে মৌলিক চাওয়া ।
শ্লোগানে শ্লোগানে গর্জে ওঠে রাজপথ,
রক্তের স্রোতে কারবালার হাহাকারে
ফেপে ওঠে আকাশ-বাতাস-সাগর সবকিছু।
তবুও দেখতে হবে স্বপ্ন,
দৃঢ় প্রতিজ্ঞায় আলিঙ্গন করতে হবে বর্তমানকে!

গ্যাস-তেল-পানি-বিদ্যুৎ কিংবা বাড়ী ভাড়া
সবখানে, দেদারসে চলছে অরাজকতা,
মুখ খুললেই বিশ্বমন্দা নামক ভ্যালকিবাজির
চিপাপথে বেড়িয়ে আসে শোষকের দল
তবুও দেখতে হবে স্বপ্ন।
দাবীর দীর্ঘ ফর্দ, টাঙাতেই হবে।
বর্তমানের দেয়ালে ।

রোদ-বৃষ্টি-ঝড়ের তোয়াক্কা না করে,
বারো থেকে তেরো-চৌদ্দ ঘন্টা অবিরাম মেশিনের
মত ছুটে চলা, আঁখের ছোবার মত সর্বস্ব বিলিয়েও
ন্যায্য পাওনাটুকু ন্যায্য সময়ে চাইলেই- ডাঙায় তোলা।
মাছের মত ছটপট করতে করতে ছাই
হয়ে যেতে হয় অবলিলায়, নরপশুর ন্যাক্কার নকশার
ফাদে- তবুও দেখতে হবে স্বপ্ন।
চালাতেই হবে চাকা বর্তমান জনজীবনে…

হাড়ী-নাড়ীর দর কষাকষিতে, ফেইসবুকের অপব্যবহারের
জৌলুসতার জোয়ারে মরিচিকা ধরে দাম্পত্য।
দিনাতিপাতে, রাত বদলের সাথেই বদলে যায়
প্রেয়সীর মন, কিংবা প্রেমীকের ভালোবাসা
তবুও দেখতে হবে স্বপ্ন।
উড়াতে হবে নীলপক্ষী বর্তমানের উদার আকাশে…

সবকিছু হারিয়ে যায়, হারিয়ে যাবে
অস্থির মনের করুন জিজ্ঞাসায় জর্জরিত মন
বারংবার বলে বেড়াবে “কার কাছে যাব আমি
কার কাছে যাব “….?”

তবুও দেখতে হবে স্বপ্ন, কেননা
“তুমি শুধু আসবে, আমার কাছেই আসবে”-
এ আকুল আবেদনে কেউ না কেউ
কারও না কারো জন্যে বর্তমান দাঁড়-প্রান্তে
দাঁড়িয়ে আছে-থাকবে পৃথিবীর শেষ একজন হয়ে
স্বপ্ন জয়ের এ অমিয়বানী শোনাতে,
তবুও দেখতে হবে স্বপ্ন…

তুমি আছ বলে!

তুমি আছ বলে, জীবন সাগরে সব কিছুতেই ছন্দ
তুমি আছ বলে, বিষাদে আজো যে খুঁজে বেড়াই আনন্দ
তুমি আছ বলে, অনুভূতিহীন মন মেলে যে পাখনা।
তুমি আছ বলে, তুচ্ছে বলিয়ে যাচ্ছে জীবন যা না
তুমি আছ বলে, দোলাচলে দুলে কষ্টকে করি ধাওয়া
তুমি আছ বলে, খুঁজিনা জীবনে নতুন কোন চাওয়া।
তুমি আছ বলে, দুর্বার বেগে অবিরাম ছুটে চলা।
তুমি আছ বলে, দৃপ্ত স্বরে ভালবাসি মুখে বলা ।
তুমি আছ বলে, সব কিছু আজ লাগে ভাল সারাক্ষণ
তুমি আছ বলে, ভাল লাগে সবি লাগে ভাল এ জীবন!

পুরো একটা আকাশ

কতদিন আকাশ দেখিনা,
সু-বিস্তৃত আকাশ ! পুরো একটা আকাশ !
খুব ইচ্ছে করে সোঁদা মাটির সুবাসে।
বিভোর মন নিয়ে সবুজ ঘাসের স্পর্শে
মাথা উঁচু করে চেয়ে দেখি, একটা বিশাল আকাশ!

কখনো সাদা তুলার পাহাড়, কখনো
প্রেমের নীল চাদর জড়ানো আকাশ,
আবার কখনোবা প্রতিক্ষায় জ্বলতে
থাকা ধুসর আকাশ ! পুরো একটা আকাশ !
জ্বানালার শিকে কিংবা বেলকনীর ফাকে
আর কতটুকুইবা আকাশ দেখা যায় !
জীবনের দ্বারপ্রান্তে আজ বড় বেশি
অনুভব করছি, একটা বিশাল আকাশের
উপস্থিতি …..! পুরো একটা আকাশ !

bangla poem book

মন

আজকে আমার চোখের তারায়,
দুলছে শ্যামল বন
বন্ধ মনের অন্ধ দুয়ার
খুলছে পোড়া মন!!

শংকা শনির অশুভ সুরে
হাতছানি কে দিচ্ছে
জানিনা বুঝিনা হবেকি হবে
মন পিছু তার নিচ্ছে!!

পোড় খাওয়া মন কিসের মোহে
ছুটছে কিসের পিছু
সব হারায়ে ফিরবে কিসে
নেইযে তাহার কিছু !!

পুড়বে বুঝি আমার আজি
চোখের তারার বন
সোনার বেড়ী দিলাম পায়ে
তবুও ছোটে মন !!

bangla poem book

ভালো কি থাকা যায় !

চারিদিকেই মানুষরুপী হাজারো ফানুষের আনাগোনা,
যেখানেই বা যার কাছে ন্যূনতম আশ্বস্ত পাওয়ার
চেষ্টা করেছি, বৃদ্ধা আঙ্গুল দিয়ে চক্ষুভেদ করে
বারবার বুঝতে হয়েছে, কি নিদারুন অপচেষ্টাই না করেছি!

জলজল করা হীরার টুকরো ভেবে যা হৃদয়ের
একান্ত অন্তরীক্ষে গচ্ছিত করেছি, যতবার সযতনে ঠিক ততবারই
সস্তা মানের কাঁচ হয়ে ক্ষত-বিক্ষত
রক্তে রক্তাত্ব হয়েছি নিত্য নতুন আঙ্গিকে !

চোখের ভুলে কিংবা মনের ভুলে হীরা ভেবে
যা তুলে নিয়েছিলাম সবটাই ছিল ধারালো কাঁচ!
ঠিক যতটুকু জায়গায় আপনত্ব খোজার জন্য
হৃদয়ের অনুভূতিগুলো গচ্ছিত করে অগ্রপথে ছুটতে চেয়েছি
এলোপাথাড়ি মুখ থুবৃরে ঠিক ততটুকু দূরত্বে ছিটকে পড়েছি !
সেযে কি দারুন কষ্ট !

ভেলকীবাজির পুরোটাই ভেলকী খেলে চলেছে
মানুষগুলো কাছের মানুষ হয়ে এক অভিনব নাটকীয়তায়….
আর আমিও বিশ্বাসের অবুঝ পঙ্খি বারবার উড়াল দেই
অবিশ্বাসের আকাশে !
ফিরে আসতে হয় রিক্ত হয়ে সবটুকু রিক্তাতয় !

তেঁতো হয়ে যায় ক্রমশই অনুভূতিগুলো !
নিজের চারিপাশে এত্ত মানুষরুপী ফানুষের ধুম্রছায়ায়,
ভালো কি থাকা যায় ?!
পোড় খাওয়া ক্ষত-বিক্ষত এ মন্টা নিয়ে
ক্রমশই অশ্রুজলের চোরাবালিতে একটু একটু করে
নিমজ্জিত হয়েই চলেছি সেই থেকে।
এই অবধি, এত্ত হৃদয়হরণতায়
ভালো কি থাকা যায় !!

Facebook Comments